বৃহস্পতিবার, ০৬ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন

কানসাটে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যানের সাথে অসৌজন্য আচরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম সোমবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১১৭ বার পঠিত

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট পল্লী বিদ্যুৎ-কানসাট সড়কের কাঠগড় এলাকায় রাস্তার পাশের গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে কানসাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. বেনাউল ইসলাম ও রাস্তার পাশের জমির মালিক মো. শামিম আলী ও মো. মবিন মিঞার সাথে অসৌজন্য আচরণ দেখা গেছে। এনিয়ে উভয় পক্ষে উত্তেজনা দেখা দেয়। সোমবার সকালে কানসাট বাজারে এঘটনা ঘটে ।

এদিকে জমির মালিক মো. মবিন মিঞার দাবি আমার পৈতিক সম্পত্তি জমির উপর লাগা গাছ আমাদের আর অন্যদিকে চেয়ারম্যান মো. বেনাউল ইসলামের দাবি স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে এটি সরকারি রাস্তার গাছ অর্থাৎ ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে। তাই মাপ যোগ করলে জানা যাবে গাছটির প্রকৃত মালিক কে? বিধায় গাছ কাটা বন্ধ করতে বলা হয়।

এব্যাপারে জমির মালিক শ্যামপুর ইউনিয়নের আজগবী গ্রামের মৃত আহসান উদ্দিনের ছেলে মো. মবিন মিঞা জানান, আমাদের পৈতিক সম্পত্তি জমিতে গাছ থাকা সত্যেও কে বা কারা মিথ্যে অভিযোগ দিয়ে গাছ কাটতে বাধা সৃষ্টি করে। কিন্তু এর আগেও চেয়ারম্যান মো. বেনাউল ইসলাম বাধা দিয়ে বলেছিলেন যে, জমি মাপ যোগ করার পর গাছ কেটে নিয়ে যেতে। কিন্তু তিনি গত এক মাস পার হলেও এর কোনো সমাধান না দেয়ায় আমরা নিজেই মাপ যোগ করে জানতে পারি এ গাছ আমাদের। তারপরও আমাদের চেয়ারম্যান বাধা দেন।

তিনি আরো বলেন, আমরা চেয়ারম্যানের সম্মানার্থে বলেছি, আপনি একটি সুষ্ঠু সমাধান করে দেন। কিন্তু আজ তিনি আমাকে জানিয়েছেন, জমি মাপা আমিনের সাথে কথা বলে জানাবো কবে জমি মাপ যোগ করা হবে। এই অপেক্ষা করছি।

অপরদিকে চেয়ারম্যান মো. বেনাউল ইসলাম জানান, স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে আমি জানতে পারি যে, রাস্তার পাশের গাছ কাটা হচ্ছে। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমি গাছ না কাটার জন্য বলি। কিন্তু তাঁরা আমার কোনো কথা না শুনে গাছ কেটে নিয়ে চলে যায়। এরপর আবারো আজ নতুনভাবে আরেকটি গাছ কাটতে দেখি এবং আমি নিজেই বাধা দিই। এই সংবাদ পেয়ে তাঁরা কানসাট বাজারে এসে আমার সাথে অসৌজন্য আচরণ করেন এবং আমার সাথে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন মো. শামিম আলী ও মবিন মিঞা ।

বিতর্কে সংবাদ পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। শেষে উভয় পক্ষে আমিন ডেকে মাপ যোগের পর গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এব্যাপারে শিবগঞ্জ থানার এস.আই রিপন সাহা জানান, গাছ কাটার ঘটনাকে কেন্দ্র করে কানসাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও শ্যামপুর ইউনিয়নের আজগবী গ্রামের মবিন মিঞার সাথে একটু বিতর্ক সৃষ্টি হয়। পরে উভয়ের সাথে আলোচনা করে উভয় পক্ষে আমিন ডেকে মাপ যোগের পর গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বর্তমানে গাছ কাটা বন্ধ আছে এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

 

Copyright © All rights reserved © 2019 Kansatnews24.com
Theme Developed BY Sobuj Ali
error: Content is protected !!