শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন

নাচোলে এক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর ইজ্জতের মূল্য ৩৮ হাজার টাকা!

মোঃ নাজিম আল মামুন, নিজস্ব প্রতিবেদক, নাচোল
  • আপডেট টাইম রবিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ৫৬ বার পঠিত

চাঁপাইনবাগঞ্জের নাচোলে এক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর ইজ্জতের মূল্য ৩৮ হাজার টাকা। শুক্রবার সকালে স্থানীয় ইউপি মেম্বার এর সহযোগিতায এ রায় কার্যকর করা হয়। এ ব্যাপারে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী নুরুল ইসলাম বাবু বাদী হয়ে নাচোল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন ।

অভিযোগে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে নাচোল উপজেলার কসবা ইউপি’র জনৈক এক প্রতিবন্ধি শিক্ষার্থীকে একই ইউপি’র খড়িবোনা বেলপুকুর গ্রামের বিরু মিস্ত্রীর ছেলে জুয়েল (২২) বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষন করে বলে ওই শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেন। ঘটনার রাতেই স্থানীয় গ্রাম পুলিশ ধর্ষক ও ভিকটিমকে কসবা ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে চৌকিদারদের পাহারায় রাতভর আটক করে রাখা হয়।

ঘটনার পরদিন স্থানীয় চেয়ারম্যানের বাড়ি নিয়ে গেলে চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান বিষয়টি শালিশ যোগ্য নয় বলে সাফ জানিয়ে দেন। সেই সাথে চেয়ারম্যান নাচোল থানায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শও দেন। কিন্তু ইউপি মেম্বার আয়েশ আলী বিষয়টি আমলে নিয়ে এক হাটখোলা বাজারের পাশে এক শালিশী সভার আয়োজন করেন এবং ধর্ষককে ৩৮ হাজার টাকা জরিমানা করে ভিকটিমের চাচা সেলিমের নিকট জমা দেন। বিষয়টি স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীরা শনিবার জানতে পেরে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হওয়ার জন্য ভিকটিমের বাড়িতে গেলে ভিকটিমের স্বজনরাসহ প্রতিবেশীরাও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

সাংবাদিকরা ভিকটিমের বাড়িতে ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানারর জন্য যায়। এরপর ভিকটিমকে ধর্ষক ও শালিশদারদের পক্ষ থেকে নানা ভাবে ভয়ভীতি ও প্রভাবিত করার চেষ্টা শুরু হয়। শেষ মুহুর্তে ভিকটিম প্রভাবশালী চক্রের চাপের মুখে থানায় মামলা দায়ের করতে ভয়পায়। এঘটনার প্রেক্ষিতে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে গতকাল শনিবার রাতে নাচোল থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এ ঘটনায় নাচোল থানা পুলিশ ভিকটিমের চাচা সেলিম ও ধর্ষকের ভাই মামুনকে আটক করেছে। আজ রবিবার ভিক্টিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..




Copyright © All rights reserved © 2019 Kansatnews24.com
Theme Developed BY Sobuj Ali